ঢাকা ০৬:২৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ
কোটা বাতিলের দাবিতে টাঙ্গাইলে ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধ টাঙ্গাইলে যুবকদের স্বেচ্ছাশ্রমে সাঁকো নির্মাণ টাঙ্গাইলে সেতুর সংযোগ সড়ক ধ্বসে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ভূঞাপুরে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে শিক্ষিকাকে কু-প্রস্তাব ও যৌন হয়রানির অভিযোগ শিক্ষকের সাময়িক বরখাস্তের প্রতিবাদে ভূঞাপুরে সংবাদ সম্মেলন মাদক না ছাড়লে টাঙ্গাইল ছাড়ার হুশিয়ারি এসপির টাঙ্গাইলে বঙ্গবন্ধু জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল (বালক অনুর্ধ্ব-১৭) টুর্নামেন্টে পোড়াবাড়ি চ্যাম্পিয়ন টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সারকে বদলি জনিত বিদায় সংবর্ধনা বাসাইলে নিরাপদ অভিবাসন ও বিদেশ-ফেরতদের পুনরেকত্রীকরণ শীর্ষক কর্মশালা টাঙ্গাইলে সপ্তাহব্যাপী বৃক্ষ মেলা শুরু

বাড়ির আঙিনায় বা ছাদে বাগান থাকলেই মিলছে সাংবাদিক সানভী’র উপহার

নিজস্ব প্রতিবেদক :
প্রকাশ: ০৯:৫১:৩৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪

বাড়ির আঙিনা ও বাসার ছাদে গাছ লাগানোর আগ্রহ বাড়ানোর জন্য ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছেন টাঙ্গাইলের বৃক্ষপ্রেমী সাংবাদিক নওশাদ রানা সানভী।

বাসা কিনবা বাড়ির আঙিনার বাগানের ছবি ফেসবুকে দিয়ে জিততে পারবেন সম্মাননা ক্রেস্ট। বাড়ি বাড়ি গিয়ে পৌঁছে দেয়া হচ্ছে সেই উপহার। টাঙ্গাইলের স্বপ্ন সুপার সপ ও লাইফ স্টাইল রিটেইলিং লিমিটেড এর সিইও সৈয়দ যুবায়ের আব্দুল্লাহ’র সৌজন্যে দেয়া হচ্ছে এই উপহার। এই উদ্যোগকে সাথে আছেন ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টার এর জেলা প্রতিনিধি মির্জা শাকিলসহ অনেকে।

এই উদ্যোগে অংশগ্রহণ করে আটপুকুর এলাকার বাসিন্দা মৌ খান বলেন, সাংবাদিক নওশাদ রানা সানভী পেইজে আমি একজন ফলোয়ার। সোমবার পেইজের একটি পোস্ট আমার নজরে আসে এবং আমি ই-মেইলে আমার ছাদ বাগানের ছবি পাঠাই। তিনি আমার বাসায় উপহার নিয়ে হাজির হন। ছাদে বাগার করে উপহার পাবো এটা কল্পনাই করতে পারিনি। আমি খুশিতে আত্মহারা। ভবিষ্যতে বৃক্ষরোপনের উৎসাহ অনেক বেড়ে গেল।

টাঙ্গাইল কালিপুর এলাকার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শাহনুর রহমান রঞ্জু’র স্ত্রী নাজমি আরা বেগম বলেন, একটু একটু করে ফুল, ফল, ঔষুধি ও শোভা বর্ধনকারি কয়েক হাজার গাছের বাগানটি তৈরি করেছি। বাগানটি আজ ৪৪ শতাংশ জায়গাজুড়ে হয়ে গেছে। বাগানের জন্য এই প্রথম পুরস্কার পেলাম, উপহার পেয়ে আমি অনেক খুশি।

শহরের বেপারি পারা এলাকার ব্যবসায়ী মোর্শেদ আলী খান মাছুম বলেন, ছোট বেলা থেকেই আমি গাছ খুব পছন্দ করি। শহরের গাছ লাগানোর জায়গা না থাকায় বাসার ছাদে গাছের বাগান করেছি। এই বাগানটি বর্তমানের তাপমাত্রায় খুব উপকারে আসছে। আমার শখ ও উপকারের বাগান করে এরকম একটি উপহার পাবো কখনও চিন্তা করতে পারিনি। আমি আমার পরিবারকে দেখাতে পারবো বাসার ছাদে বাগান করেও পুরস্কার জেতা যায়। সানভি ভাইয়ের এরকম উদ্যোগ আমার জীবনে প্রথম দেখলাম। এর আগে এরকম কাজ কেউ করেছে আমার চোখে পরেনি। ছাদে বাগান থাকলেই বাসায় গিয়ে দেখে তিনি নিজ হাতে পুরস্কার প্রদান করেন।

সিনিয়র সাংবাদিক মির্জা শাকিল বলেন, রুক্ষ এই নগর জীবনে একটুকরো সবুজ, একটু বাগান যাদের আছে তারা সত্যিই ভাগ্যবান, আশাকরি সাংবাদিক সানভী এই উদ্যোগে আরো অনেকেই নিজের বারির খোলা ছাদে বা আঙিনায় বাগান করে নিজেকে এবং প্রকৃতিকে আরো সমৃদ্ধ করবেন।

নওশাদ রানা সানভী বলেন, গাছের প্রতি ভালোবাসা ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বেশি বেশি গাছ লাগাতে মানুষকে উৎসাহিত করতে আমার এই ক্ষুদ্র চেষ্টা। সবুজ কে ভালোবাসুন দেশ সবুজ হবে, ছায়া দিবে, ফল দিবে, ফুল দিবে অক্সিজেন দিবে। শহরে যাদের গাছ বপন করার জায়গা নেই, তারা ছাদে অথবা বারান্দায় গাছ লাগালে কিছুটা হলেও উপকৃত হবে। গাছ লাগিয়ে গাছের পরিচর্যা করলে অলস সময় কেটে যাবে এবং মোবাইলের প্রতি আশক্তি কমবে।

 

এম.কন্ঠ/ ২৩ এপ্রিল/এম.টি

নিউজটি শেয়ার করুন

বাড়ির আঙিনায় বা ছাদে বাগান থাকলেই মিলছে সাংবাদিক সানভী’র উপহার

প্রকাশ: ০৯:৫১:৩৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪

বাড়ির আঙিনা ও বাসার ছাদে গাছ লাগানোর আগ্রহ বাড়ানোর জন্য ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছেন টাঙ্গাইলের বৃক্ষপ্রেমী সাংবাদিক নওশাদ রানা সানভী।

বাসা কিনবা বাড়ির আঙিনার বাগানের ছবি ফেসবুকে দিয়ে জিততে পারবেন সম্মাননা ক্রেস্ট। বাড়ি বাড়ি গিয়ে পৌঁছে দেয়া হচ্ছে সেই উপহার। টাঙ্গাইলের স্বপ্ন সুপার সপ ও লাইফ স্টাইল রিটেইলিং লিমিটেড এর সিইও সৈয়দ যুবায়ের আব্দুল্লাহ’র সৌজন্যে দেয়া হচ্ছে এই উপহার। এই উদ্যোগকে সাথে আছেন ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টার এর জেলা প্রতিনিধি মির্জা শাকিলসহ অনেকে।

এই উদ্যোগে অংশগ্রহণ করে আটপুকুর এলাকার বাসিন্দা মৌ খান বলেন, সাংবাদিক নওশাদ রানা সানভী পেইজে আমি একজন ফলোয়ার। সোমবার পেইজের একটি পোস্ট আমার নজরে আসে এবং আমি ই-মেইলে আমার ছাদ বাগানের ছবি পাঠাই। তিনি আমার বাসায় উপহার নিয়ে হাজির হন। ছাদে বাগার করে উপহার পাবো এটা কল্পনাই করতে পারিনি। আমি খুশিতে আত্মহারা। ভবিষ্যতে বৃক্ষরোপনের উৎসাহ অনেক বেড়ে গেল।

টাঙ্গাইল কালিপুর এলাকার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শাহনুর রহমান রঞ্জু’র স্ত্রী নাজমি আরা বেগম বলেন, একটু একটু করে ফুল, ফল, ঔষুধি ও শোভা বর্ধনকারি কয়েক হাজার গাছের বাগানটি তৈরি করেছি। বাগানটি আজ ৪৪ শতাংশ জায়গাজুড়ে হয়ে গেছে। বাগানের জন্য এই প্রথম পুরস্কার পেলাম, উপহার পেয়ে আমি অনেক খুশি।

শহরের বেপারি পারা এলাকার ব্যবসায়ী মোর্শেদ আলী খান মাছুম বলেন, ছোট বেলা থেকেই আমি গাছ খুব পছন্দ করি। শহরের গাছ লাগানোর জায়গা না থাকায় বাসার ছাদে গাছের বাগান করেছি। এই বাগানটি বর্তমানের তাপমাত্রায় খুব উপকারে আসছে। আমার শখ ও উপকারের বাগান করে এরকম একটি উপহার পাবো কখনও চিন্তা করতে পারিনি। আমি আমার পরিবারকে দেখাতে পারবো বাসার ছাদে বাগান করেও পুরস্কার জেতা যায়। সানভি ভাইয়ের এরকম উদ্যোগ আমার জীবনে প্রথম দেখলাম। এর আগে এরকম কাজ কেউ করেছে আমার চোখে পরেনি। ছাদে বাগান থাকলেই বাসায় গিয়ে দেখে তিনি নিজ হাতে পুরস্কার প্রদান করেন।

সিনিয়র সাংবাদিক মির্জা শাকিল বলেন, রুক্ষ এই নগর জীবনে একটুকরো সবুজ, একটু বাগান যাদের আছে তারা সত্যিই ভাগ্যবান, আশাকরি সাংবাদিক সানভী এই উদ্যোগে আরো অনেকেই নিজের বারির খোলা ছাদে বা আঙিনায় বাগান করে নিজেকে এবং প্রকৃতিকে আরো সমৃদ্ধ করবেন।

নওশাদ রানা সানভী বলেন, গাছের প্রতি ভালোবাসা ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বেশি বেশি গাছ লাগাতে মানুষকে উৎসাহিত করতে আমার এই ক্ষুদ্র চেষ্টা। সবুজ কে ভালোবাসুন দেশ সবুজ হবে, ছায়া দিবে, ফল দিবে, ফুল দিবে অক্সিজেন দিবে। শহরে যাদের গাছ বপন করার জায়গা নেই, তারা ছাদে অথবা বারান্দায় গাছ লাগালে কিছুটা হলেও উপকৃত হবে। গাছ লাগিয়ে গাছের পরিচর্যা করলে অলস সময় কেটে যাবে এবং মোবাইলের প্রতি আশক্তি কমবে।

 

এম.কন্ঠ/ ২৩ এপ্রিল/এম.টি